আজ শুক্রবার, ৩০ জুলাই, ২০২১, ১৫ শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৯শ জিলহজ, ১৪৪২ হিজরী
আজ শুক্রবার, ৩০ জুলাই, ২০২১, ১৫ শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৯শ জিলহজ, ১৪৪২ হিজরী

বাজার স্থিতিশীল রাখতে ১০ লাখ টন চাল আমদানি করবে সরকার

চালের বাজার স্থিতিশীল রাখতে ১০ লাখ টন সিদ্ধ চাল আমদানি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। জানা গেছে, প্রাথমিকভাবে ২৫ শতাংশ আমদানি শুল্কে ১০ লাখ টন চাল বেসরকারি পর্যায়ে আমদানির প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। বাজারদর স্থিতিশীল রাখার স্বার্থে খাদ্য মন্ত্রণালয় প্রয়োজনে এই পরিমাণ কমাতে-বাড়াতে পারবে।
এবার প্রতি মণ ধানের দাম এক হাজার ৮০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এতে কৃষক ন্যায্যমূল্য পেয়েছে। কারণ একজন কৃষকের মণপ্রতি উৎপাদন খরচ ৭০০ থেকে ৭৫০ টাকার বেশি হয়নি। অতএব আমদানি করলে কৃষক কোনোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে না। বোরো ধান কাটার পরও চালের দাম বেড়েছে, তাই আগের ধারাবাহিকতায় সরকারি আমদানির সঙ্গে বেসরকারিভাবে চাল আমদানি করতে হবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে খাদ্য সচিব নাজমানারা খানুম বলেন, নীতিমালা অনুযায়ী ১০ লাখ টন খাদ্যশস্য মজুদ রাখতে হয়। এক্ষেত্রে অভ্যন্তরীণ সংগ্রহের মাধ্যমে প্রায় ৫ লাখ টন এবং বৈদেশিক সংগ্রহের মাধ্যমে প্রায় ৫ লাখ টন সংগ্রহ হবে। যা বাজার নিয়ন্ত্রণের জন্য পর্যাপ্ত নয়। কৃষককে ধানের ন্যায্যমূল্য প্রদান, সেই সঙ্গে বাজার নিয়ন্ত্রণে বেসরকারি পর্যায়ে আমদানি প্রয়োজন।

এদিকে, খাদ্য মন্ত্রণালয়ের চাল আমদানি পরিস্থিতির তথ্য পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের ২৮ এপ্রিল পর্যন্ত দেশে বেসরকারি পর্যায়ে দৈনিক ১০ হাজার ৮৭০ টন হারে মোট ৭ লাখ ৩৪ হাজার ৪৩০ টন চাল আমদানি হয়েছে।

বেসরকারিভাবে সরকার মোট ৩২০ জন আমদানিকারককে ১০ লাখ ১৭ হাজার ৫০০ টন চাল আমদানির অনুমোদন দেয়। কিন্তু অনুমতিপ্রাপ্তরা এলসি খোলার সময়সীমা দুইবার বাড়ানোর সুযোগ পেয়েও ফেব্রুয়ারির শেষ দিন পর্যন্ত অনেকে এলসি খোলেননি। আবার যারা খুলেছেন, তাদের অনেকে চাল আমদানি করেননি। কেউ কেউ করলেও তা প্রত্যাশিত পরিমাণে ছিল না।

অন্যদিকে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর জানাচ্ছে, চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরে দেশে ৩ কোটি ৯৬ লাখ ৪৩ হাজার ৯০০ টন ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। এর বিপরীতে এখন পর্যন্ত ১ লাখ ২০ হাজার ৩৬৬ হেক্টর জমি থেকে ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত হেক্টরপ্রতি ধানের ফলন পাওয়া গেছে ৩ দশমিক ২৯ টন।

কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ বলছে, চলতি বোরো মৌসুমে দেশে ধানের জমিতে কয়েক ঘণ্টার হিট শক বয়ে গেছে। এতে ২১ হাজার হেক্টর জমির ধান নষ্ট হয়েছে। তবে আশার খবর হচ্ছে, এবার লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৭৮ হাজার হেক্টর বেশি জমিতে বোরো ধান উৎপাদন হয়েছে। তা ছাড়া প্রতিবন্ধকতা সত্ত্বেও ধানের অর্জিত ফলন প্রত্যাশাকে ছাড়িয়ে যাচ্ছে। ফলে ধানের সার্বিক উৎপাদন এবার গতবারের তুলনায় না কমে উল্টো লক্ষ্যমাত্রাকে ছাড়িয়ে যেতে পারে। সামনে প্রকৃতি খারাপ থাকলেও সেটি লক্ষ্যমাত্রার কাছাকাছিই থাকবে।

এ পরিস্থিতিতে কৃষকের ধানের দাম পাওয়া নিয়ে দুশ্চিন্তার কোনো কারণ নেই জানিয়ে খাদ্যসচিব ড. নাজমানারা খানুম আরো বলেন, এরই মধ্যে সরকার দেশে ধান-চালে এ যাবৎকালের সর্বোচ্চ দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে।

সরকার চলতি বোরো মৌসুমে অভ্যন্তরীণ উৎপাদন থেকে ৬ লাখ টন ধান এবং সাড়ে ১১ লাখ টন চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা ও কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। ঘোষণা অনুযায়ী, সরকার কৃষকের কাছ থেকে কেজিপ্রতি ২৭ টাকা দরে ধান কিনবে, আর কেজিপ্রতি ৪০ টাকা দরে ১০ লাখ টন সেদ্ধ চাল এবং ৩৮ টাকা দরে দেড় লাখ টন আতপ চাল কিনবে চালকল মালিকদের কাছ থেকে। এই দাম গত বছরের তুলনায় কেজিপ্রতি যথাক্রমে এক টাকা ও তিন টাকা বাড়ানো হয়েছে।

গত ২৮ এপ্রিল থেকে ধান কেনা শুরু হয়েছে। চাল সংগ্রহের অভিযান শুরু হয়ে গেছে ৭ মে থেকে। চলবে আগামী আগস্ট মাস পর্যন্ত।